News

Madhyamik: মাধ্যমিকে প্রশ্নফাঁস রুখতে ‘অদৃশ্য নম্বরের’ ব্যবহার, এবার প্রশ্নফাঁস হলেই ধরা পরে যাবে

পরীক্ষাকেন্দ্রে বসেই কেউ প্রযুক্তির অপব্যবহার করে প্রশ্নপত্র সামাজমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়, এই ধরনের ছলচাতুরি রুখতে কড়া পদক্ষেপ করতে চলেছে পর্ষদ।

Madhyamik: মধ্য শিক্ষা পর্ষদ (WBBSE) মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস রোধ করতে প্রশ্নপত্রে ‘অদৃশ্য নম্বর’ বা অনন্য আইডি ব্যবহার করছে । প্রশ্নপত্রে উপস্থিত নম্বর খালি চোখে দেখা যাবে না, বোর্ড বিশেষ প্রযুক্তির সাহায্যে ছবি তুললেই ওই নম্বর বুঝতে পারবে। জেলা সফরে গিয়ে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এমন কড়া সিদ্ধান্ত নিল মধ্য শিক্ষা পর্ষদ।

অনেক সময় দেখা গেছে, মাধ্যমিক পরীক্ষা (Madhyamik Examination 2024) শুরু হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যেই বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ছড়িয়ে পড়ে (Madhyamik Question Paper Leak)। পরীক্ষা কেন্দ্রে বসে কেউ প্রযুক্তির অপব্যবহার করে প্রশ্নপত্র সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিলে এ ধরনের প্রশ্ন ফাঁস বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে বোর্ড।

পর্ষদের চেয়ারম্যান রামানুজ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, আমরা প্রতিটি প্রশ্নপত্রে একটি ইউনিক আইডি নম্বর ব্যবহার করছি। যেটি প্রশ্নপত্রের প্রথম পৃষ্ঠায় লেখা থাকবে, তবে বাকি পৃষ্ঠায় নম্বরটি অদৃশ্য থাকবে, যা ছবি তুলে ধরা যাবে।

প্রতিটি প্রশ্নপত্রে একটি ইউনিক আইডি বা ‘ম্যাজিক নম্বর’ ব্যবহার করা হবে বলে বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। প্রত্যেক প্রার্থীকে অবশ্যই হাজিরা খাতায় প্রশ্নপত্রের শীর্ষে দেওয়া এই অনন্য আইডি নম্বরটি লিখতে হবে। উত্তরপত্রেও এই নম্বরটি লিখতে হবে।

পরীক্ষার সময়, কক্ষের ইনচার্জ ইনভিজিলেটরকে এই পুরো বিষয়টির দিকে নজর রাখতে হবে, জেলা সফরের সময় বোর্ডের পক্ষ থেকে এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বোর্ডের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ২০২৪ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রশ্নপত্রের গোপনীয়তা রক্ষায় এই নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রশ্নপত্রটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে বোর্ডের বিশেষ অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে সহজেই জানা যাবে কোন পরীক্ষার্থী বা কোন স্কুল থেকে প্রশ্নপত্রটি ছড়ানো হয়েছে।

পর্ষদ সভাপতি বলেন, এই ধরনের কম্পিউটারাইজড ইউনিক আইডি এই বছর প্রথমবারের মতো ১০ লাখেরও বেশি প্রার্থীর জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। দু-একজন পরীক্ষার্থীর ব্যাপারে পুরো পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে বারবার প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে বোর্ডকে। এ কারণে পরীক্ষা পদ্ধতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরও অসুবিধায় পড়তে হয়। এই বিশেষ ব্যবস্থার মূল উদ্দেশ্য হল প্রকৃত অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করা। উল্লেখ্য, ২০২৪ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষা ২ রা ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে এবং ১২ ই ফেব্রুয়ারি শেষ হবে।

Join Telegram groupJoin Now
Join WhatsApp ChannelJoin Now

Related Articles

Back to top button